রাজনীতি

রাজনীতি এখন অনেকটা ব্যবসায়ে পরিণত হয়েছে : জাতীয় পার্টির নতুন চেয়ারম্যান

  • 4
    Shares

সংসদে প্রধান বিরোধী দল জাতীয় পার্টির নতুন চেয়ারম্যান হলেন দলটির প্রতিষ্ঠাতা ও সাবেক স্বৈরশাসক হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের সহোদর জি এম কাদের। দায়িত্ব নিয়ে বললেন,দলের কর্তৃত্ববাদী নীতির লাগাম টানতে চান তিনি।দলের নতুন চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব নেয়ার পর ডয়চে ভেলের সঙ্গে কথা বলেন জি এম কাদের। তিনি জানান, দলের সাংগঠনিক ভিত মজবুত করতে চান৷ তার দাবি, নানা কারণে সংগঠন দুর্বল হয়ে গেছে৷ তাই সাংগঠনিক গতিশীলতা বাড়ানোর কাজটি দিয়েই শুরু করতে চান জিএম কাদের।

‘রাজনীতি এখন অনেকটা ব্যবসায়ে পরিণত হয়েছে’ জানিয়ে এটাকেই দেশের রাজনীতির সবচেয়ে নেতিবাচক দিক হিসেবে চিহ্নিত করেন কাদের। বলেন, মানুষ এখানে (রাজনীতি) ইনভেস্ট করে, তার বিনিময়ে কিছু লাভ করবে সেই আশায় রাজনীতি করে। দেশ ও জনগণের স্বার্থে কাজ করা, দেশপ্রেম, দেশের জন্য ত্যাগ—এগুলোর যে মূল্যায়ন, তা প্রকৃত হচ্ছে না৷ টাকা পয়সা, অর্থ, শক্তি—এসবের মূল্যায়ন হচ্ছে।

এ ধারার বিপরীতে, জনগণের আশা-আকাঙ্ক্ষার রাজনীতি প্রতিষ্ঠা করার ইচ্ছে পোষণ করেন দলটির নতুন চেয়ারম্যান। জাতীয় পার্টিকে এগিয়ে নিতে দলের সদস্যের মূল্যায়ন করা, ক্ষমতাকে তাদের মধ্যে ছড়িয়ে দেয়ার চেষ্টা করবেন বলেও জানান তিনি। দলে গণতান্ত্রিক চর্চাটা থাকলে তা বাস্তবায়ন সম্ভব বলেও মত তার। বললেন, নেতাকর্মীদের মতামতের ভিত্তিতে কর্মসূচি প্রণয়ন করা হবে, বাস্তবায়নও তারাই করবে।জি এম কাদের মনে করেন, দলের ক্ষমতা একক ব্যক্তি বা শ্রেণির হাতে থাকলে মনোনয়ন বাণিজ্য, পদ-পদবী নিয়ে বাণিজ্য হয়৷ তাই জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে সবাইকে নিয়ে কাজ করতে চান তিনি।

বিরোধী দলের নেতা?

সংসদে কে হবেন বিরোধী দলের নেতা?—এমন প্রশ্নের উত্তরে জিএম কাদের বললেন, দলীয় ফোরাম আলাপ আলোচনা করে ঠিক করা হবে।’ আগে আমার ভাবী এবং সাবেক ফার্স্ট লেডি বেগম রওশন এরশাদ ছিলেন, উনার কাজের অভিজ্ঞতাও আছে। উনি এখনও দ্বিতীয় পজিশনে আছেন, কাজ করছেন। আমি মনে করি দলের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এটা হওয়া উচিত।দলে কোনো কোন্দল আছে মনে করেন না জিএম কাদের। তার কথা হলো, প্রতিযোগিতা থাকলে প্রত্যাশা থাকেই৷ প্রতিযোগিতা শেষ হলে সেটাও শেষ হয়ে যায়। নিজেদের মধ্যে বড় ধরনের কোনো দ্বিমত আছে মনে হয়নি।

জি এম কাদের বলেন, বাংলাদেশের রাজনীতির প্রধান তিনদলই নেতা কেন্দ্রিক হয়ে গেছে৷ নেতাই সর্বেসর্বা। এটার বড়ো ডিফেক্ট হলো, কোনো কারণে নেতা বিপদে পড়ে গেলে বা ধাক্কা পেলে, দল ক্ষতিগ্রস্ত হয়।তাই রাজনীতির এই সংস্কৃতি ভেঙে দিতে চান কাদের। তিনি বলেন, স্যার বলা বা না বলা কোনো কথা নয়৷ কথা হলো নেতা সম্পর্কে সাধারণ মানুষের ধারণা থাকা উচিত, হি ইজ ওয়ান অব আস (তিনি আমাদের একজন)।তাই সম্বোধনকে বড় করে দেখছেন না জাতীয় পার্টির নতুন কান্ডারি। তিনি জানান, গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো কর্তৃত্ববাদী নীতি যেটা ছিল এতোদিন, সেটাকে আমি সীমিত করতে চাচ্ছি।


  • 4
    Shares