জাতীয়

শতবর্ষী আ.লীগ নেতার মুখে বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি শুনলেন প্রধানমন্ত্রী


কুষ্টিয়ার প্রবীন আওয়ামী লীগ নেতা ইচাহক মাস্টারের (১০৪) নিকট থেকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্মৃতিচারণ শুনেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সোমবার সন্ধ্যায় শতবর্ষী এই বৃদ্ধকে গণভবনে আমন্ত্রণ জানান প্রধানমন্ত্রী। এ সময় ১৯৫০ সালে যশোরে বঙ্গবন্ধুর জনসভার স্মৃতিচারণ শোনেন তিনি।

গত ২০ ডিসেম্বর আওয়ামী লীগের সম্মেলনে লাঠিতে ভর দিয়ে যোগ দেন কুষ্টিয়ার শতবর্ষী আওয়ামী লীগ নেতা ইচাহক মাস্টার।

আওয়ামী লীগের উপপ্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম জানান, আওয়ামী লীগের শতবর্ষী নেতা ইচাহক মাস্টারকে গণভবনে ডেকেছিলেন প্রধানমন্ত্রী। এ সময় তিনি তার সঙ্গে দীর্ঘ সময় কথা বলেন। ১৯৫০ সালে জাতির পিতা যশোর সফর করেছিলেন। সে সময় মঞ্চে কে কে উপস্থিত ছিলেন এবং সেদিন ভাষণে কী বলেছিলেন সেসব স্মৃতিচারণ প্রধানমন্ত্রী তার কাছ থেকে শোনেন।

এক পর্যায়ে ইচাহক মাস্টার আবেগে আপ্লুত হয়ে প্রধানমন্ত্রীর মাথায় হাত বুলিয়ে দোয়া করেন এবং গণভবনে আমন্ত্রণ জানানোর জন্য ধন্যবাদ জানান।

এসময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘আপনাদের মতো বঙ্গবন্ধুপ্রেমী আছে বলেই আওয়ামী লীগের ভীত এতো শক্ত।’

গণভবনে ইচাহক মাস্টারের সঙ্গে ছিলেন তার ছেলে কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আলী মর্তুজা খসরু ও তার স্ত্রী শাম্মী আক্তার।

বয়সের ভারে কাঁপা কাঁপা কণ্ঠে ইচাহক মাস্টার বলেন, ‘আওয়ামী লীগের প্রায় সব সম্মেলনেই অংশগ্রহণ করেছি। কিন্তু কখনও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে কথা বলা বা দেখা করার সুযোগ হয়নি। শুধু দূর থেকে উনাকে দেখি। কাছে গিয়ে কথা বলার ইচ্ছে বহুদিনের। ধানমন্ডির বাসায় বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে বেশ কয়েকবার দেখা করেছি। ওই সময় প্রধানমন্ত্রী বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তেন। এরপর যশোরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, ফজলুল হক ও সোহরাওয়ার্দীর সঙ্গে দেখা হয়েছে। কথা হয়েছে। অনেক স্মৃতি রয়েছে তাদের সঙ্গে। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করা স্বপ্ন ছিল আমার। বহুদিনের স্বপ্নটা পূরণ হয়েছে।’

ইচাহক মাস্টার কুষ্টিয়া সদর উপজেলার আব্দালপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাকালীন সভাপতি ও সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতির দায়িত্বে থাকার সময়ে আব্দালপুর ইউনিয়ন পরিষদের চারবার নির্বাচিত চেয়ারম্যান ছিলেন।