বাগেরহাট

কর্মহীন মানুষের পাশে শুদ্ধপ্রাণ সমাজকল্যাণ সংঘ


মোংলায় গৃহবন্দি কর্মহীন অসহায়, দরিদ্র, মধ্যবিত্তদের মাঝে ত্রান ও ইফতারি সামগ্রী বিতরণ করেছে শুদ্ধপ্রাণ সমাজকল্যাণ সংঘ । বাগেরহাট জেলার কিছু থানা সহ বুড়িডাঙ্গা ইউনিয়ান ও আশেপাশের এলাকা গুলোতে শুদ্ধপ্রাণের ত্রান সামগ্রী বিতারন অব্যাহত রেখেছে।

শুদ্ধপ্রাণের কর্মীরা বিভিন্ন পাড়া মহল্লায় ঘুরে ঘুরে সাধারন মানুষকে সচেতনতা মূলক প্রচারনা করছে । ইউনিয়ানের প্রতিটি গ্রাম মহল্লায় এই সংঘঠনটি প্রবেশ পথে হ্যন্ডসেনিটাইজার, হাত ধোয়ার ব্যবস্তা, ও জীবনুনিধক স্প্রের ব্যবহরের ব্যবস্তা করছে। ঢাকা সহ আশপাশের জেলা গুলো থেকে কেউ গ্রামে আসলে তাদেরকে হোমকরেইন্টাইনে থাকার অনুরোধ করছে। এ ছাড়াও সংঘঠনটির একদল সেচ্ছাসেবী গৃহবন্দি অসহায়, মধ্যবিত্ত দের বাড়ি বাড়ি খাবার পৌছিয়ে দিচ্ছে। এ ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করেছে”শুদ্ধপ্রাণ সমাজকল্যাণ সংঘ”। হটলাইনে ফোন কলের মাধ্যমে, কেউ সাহয্য চাইলে রাতের আধারে খাবার নিয়ে পৌছিয়ে যাচ্ছে সাহয্য প্রার্থীর বাড়িতে।

বিশ্বব্যাপী করোনা যখন মহামারিরূপ নিয়েছে, বাংলাদেশও এর ভয়ানক থাবা থেকে রেহাই পায়নি। রাজধানী ঢাকাসহ প্রায় ১৫টি জেলা এখন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত। এ ভাইরাসটি খুব দ্রুত বিস্তার করে মানুষকে নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করছে। যে ভাইরাসকে মানুষই পারতো প্রতিরোধ করতে, শুধুমাত্র সচেতনতার অভাবে, বিষয়টিকে গুরুত্ব না দেয়ার ফলে, কিছু মানুষের উদাসীনতায় বাংলাদেশেও এর ভয়ানক বিস্তার এখন অনেকটাই পরিস্কার। এখন ভাইরাসটিই মানুষকে মৃত্যুর কোলে ফেলে দিচ্ছে, দীর্ঘ হচ্ছে লাশের সারি।

একদিকে মানুষের করোনা আতঙ্ক, অন্যদিকে খাদ্য সংকট। যেখানে সরকারকে হিমশিম খেতে হচ্ছে মানুষের জীবনের সঠিক নিরাপত্তা প্রদানে। দায়িত্ববান অনেক প্রভাবশালী কর্তাব্যক্তিরা যখন নিজেরদের আড়াল করে রেখেছেন। জনপ্রতিনিধি বা দায়িত্ববান কাউকে না পেয়ে যেখানে বাঁচার তাগিদে সাধারণ মানুষ খাদ্যের জন্য শত বাধা নিষেধ শর্তেও রাস্তায় বের হচ্ছেন । অসহায় মধ্যেবিত্ত ও অসুবিধায় থাকা মানুষদের পাশে থেকে এ ত্রাণ কার্যক্রম অব্যাহত রাখবেন বলে জানিয়েছেন সংগঠনটির প্রতিষ্ঠাতা মোস্তাফিজুর রহমান জনি প্রয়োজনে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে এবং তাদের দেওয়া হটলাইনে নম্বরে যোগাযোগ করারও অনুরোধ জানান তিনি।

সংগঠণটি ২০১৬ সালে প্রতিষ্ঠা করেন কয়েকজন সহপাঠীক বন্ধুকে নিয়ে। এরপর থেকে একের পর এক সমাজের উন্নায়নমূলক কাজে ও মানব সেবায় অংশ নিচ্ছে সংঘঠনটি। দেশের এই ক্লান্তিকালে অসহায় মানুষের সহযোগিতা, চিকিৎসা ও পরিবেশ রক্ষায় নিরালস ভাবে কাজ করে যাচ্ছে সংগঠনটি।

শীতার্ত মানুষের, অসহায় সুবিদা বঞ্চিত ও দরিদ্র শিক্ষার্থী দের পাসে থেকে ব্যাপক সহযোগিতার অভিজ্ঞতা রয়েছে সংগঠনটির।

রাষ্ট্রীয় কোনো সহযোগিতা না পেলেও প্রতিষ্ঠার পর থেকেই দরিদ্র শিক্ষার্থীদের মাঝে খাতা,কলম,পোষক ইত্যাদি দিয়ে সর্বদা সহোযিতা করছে এ ছাড়া ও চিকিৎসা ক্ষেত্রে এই সংঘঠন টির ভূমিকা প্রশংসানিয় জটিল ব্যধি ক্যন্সারে আক্রান্ত রুগিকে সংঘঠনটি সার্বিক ভাকে সহযোদিতা করছে অর্থ ও সঠিক গাইডলাইনের মাধ্যমে, উন্নত চিকিৎসার প্রয়জনহলে দেশের বাহিরে পাঠানো থেকে শুরুকরে চিকিৎসার জন্য সবধরেন সহযোগীতাই করে আসছে।সংঘঠনটি এছাড়াও ঈদে, পূজায় পথশিশুদের মাঝে নতুন জামা কাপড় বিতারন ও প্রতি রমজানে অসচ্ছল পরিবার গুলোর মধ্য রমজানের খাদ্যসহতা করে আসছে এই সংঘঠনটি। সমাজের বিভিন্ন উন্নায়নমূলক কাজে অবদান রাখছে সংঘঠনটি।

শুদ্ধপ্রাণ সমাজকল্যাণ সংঘের প্রতিষ্ঠাতা মোস্তাফিজুর রহমান (জনি) সমাজের সকল সামর্থবানকে ধনীদের বর্তমান এ মহা বিপদে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে বলেন, আমাদের এ মৃত্যু মিছিল থামিয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসতে হবে। তাই অবশ্যই বিশ্ব স্বাস্থ্যসংস্থা ও সরকারের নিদের্শনা আমাদের মেনে চলতে হবে। ঘরে থেকে এ মৃত্যুকে থামিয়ে দিয়ে জীবনকে জয় করতে হবে।