আন্তর্জাতিক

অস্ট্রেলিয়ায় ভ্যাকসিন বিরোধী বিক্ষোভ

  • 1
    Share

অস্ট্রেলিয়ায় ভ্যাকসিন কর্মসূচি সামনে রেখে ভ্যাকসিন বিরোধীরা বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়েছে। বিবিসির খবরে বলা হয়, মেলবোর্ন, সিডনি, ব্রিসবেন জুড়ে ভ্যাকসিন বিরোধী র‌্যালি অনুষ্ঠিত হয়। কর্মসূচি থেকে বিক্ষোভকারীরা ‘আমার শরীর, আমার পছন্দ (মাই বডি, মাই চয়েস) স্লোগান দেন।

অস্ট্রেলিয়ার স্থানীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়, শান্তিপূর্ণভাবেই র‌্যালি অনুষ্ঠিত হয় । কিন্তু পুলিশ মেলবোর্নে কয়েকজন বিক্ষোভকারীরে আটক করে।

আগামী সোমবার থেকে অস্ট্রেলিয়ায় জাতীয়ভাবে ফাইজারের ভ্যাকসিন কার্যক্রম শুরু হবে। অস্ট্রেলিয়ার মেডিকেল নিয়ন্ত্রক সংস্থা চলতি সপ্তাহের শুরুতে অ্যাস্ট্রেজেনেকা এবং অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটির উন্নয়নকৃত ভ্যাকসিন শর্তসাপেক্ষে অনুমোদন দেয়। আগামী মাস থেকে ওই ভ্যাকসিন কার্যক্রম শুরু হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

উভয় প্রকার ভ্যাকসিনই ব্যাপক নিরাপত্তা পরীক্ষার মধ্য দিয়ে গেছে। ভ্যাকসিন দুটি বেশ কয়েটি দেশে ইতোমধ্যে ব্যবহার করা হয়েছে।

এবিসি নিউজ জানায়, অস্ট্রেলিয়ার ভ্যাকসিন বিরোধী কর্মসূচিতে কয়েক হাজার মানুষ অংশ নেয়। মেলবোর্নের কিছু প্রতিবাদকারীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ হয়। পুলিশ বিক্ষোভকারীদের লক্ষ্য করে পেপার-স্প্রে ছোড়েন এবং কয়েকজনকে আটক করেন।

অস্ট্রেলিয়ার পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়, কোভিড-১৯ আইন ভঙ্গ করার দায়ে ১৫ জনকে শাস্তি দেয়া হয়। এছাড়া অন্য পাঁচজনকে পুলিশের কাজে বাধা দেয়া , বিস্তারিত তথ্য না দেয়া এবং আটক এড়ানোর দায়ে অভিযুক্ত করা হয়েছে।

সিডিনির র‌্যালিতে অস্ট্রেলিয়ার সেলিব্রেটি পেট ইভানস বক্তব্য দেন। একাধিকবার করোনা ভাইরাস নিয়ে ভুল তথ্য ছড়ানো দায়ে ফেসবুক এবং ইন্সটাগ্রাম থেকে তাকে নিষিদ্ধ করা হয়। সেখানে প্রতিবাদকারীরা ভ্যাকসিনের নিন্দা সম্বলিত প্রতীক ধারণ করেন। একজন বিক্ষোভকারী বলেন , ‘ আমি কেয়ার করি না (আই ডোন্ট কেয়ার), তুমি ভ্যাকসিন চাইলে ভ্যাকসিন নাও, কিন্তু আমাকে নিতে বাধ্য করো না।’

অস্ট্রেলিয়ায় করোনার টিকা ফ্রি। কিন্তু জনসাধারণের জন্য করোনার টিকা নেয়া বাধ্যতামূলক নয়। অস্ট্রেলিয়া সরকার আগামী মার্চের মধ্যে ৪০ লাখ মানুষকে টিকা দেয়ার লক্ষ্য নিয়েছে। প্রথম ধাপে দেশটিতে স্বাস্থ্য বিভাগের ফ্রন্ট লাইন কর্মী, সীমান্ত এবং কেয়ার হোমে নিয়োজিত এমন সাত লাখ মানুষকে ভ্যাকসিন প্রদান করবে। এখন পর্যন্ত অস্ট্রেলিয়ায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ২৯ হাজার। দেশটিতে মোট মৃত্যুবরণ করেছে ৯০৯ জন।


  • 1
    Share