অর্থনীতি

বিশ্ববাজারে চালের সরবরাহ বাড়াবে ভারতঃ আরইএ


বিশ্বের ৩৯টি দেশের প্রধান খাদ্যশস্য চাল। তবে বিশ্বের অন্যান্য অঞ্চলের তুলনায় এশিয়ার দেশগুলো খাদ্যশস্য হিসেবে চালের ওপর বেশি নির্ভরশীল। চলতি বছর এসব দেশের চালের চাহিদা মেটাতে সবচেয়ে বড় ভূমিকা রাখবে ভারত। দেশটির রাইস এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন (আরইএ) এ তথ্য জানিয়েছে।

বিশ্বের সবচেয়ে বৃহৎ চাল উৎপাদনকারী দেশ ভারত। কৃষিপণ্যটির আন্তর্জাতিক রফতানি বাজারেও বড় হিস্যা রয়েছে দেশটির। এ বছর চাল উৎপাদন ও রফতানিতে ভারতের আধিপত্য বজায় থাকবে। দেশটির রফতানিকারকরা গত বছর সব মিলিয়ে ১ কোটি ৩০ লাখ ৮০ হাজার টন নন-বাসমতি চাল রফতানি করেন, যা রেকর্ড সর্বোচ্চ। চলতি বছর এর চেয়েও বেশি পরিমাণ চাল রফতানির পরিকল্পনা রয়েছে। দেশটির বাণিজ্য ও খাতসংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞরা এ তথ্য জানিয়েছেন।

গত বছর নন-বাসমতি চালের চাহিদা ছিল আকাশছোঁয়া। ফলে সরবরাহসংক্রান্ত জটিলতা ও অতিমারীর প্রভাব সত্ত্বেও বিশ্বের বেশির ভাগ চাল আমদানিকারক দেশ ভারত থেকে চাল ক্রয় করেছে। গত বছর দেশটি বিশ্ববাজারে সব মিলিয়ে ৪৬ লাখ ২০ হাজার টন বাসমতি চাল সরবরাহ করে। এসব চালের মূল্য দাঁড়িয়েছে ৪০০ কোটি ডলারে। ২০২০-২১ বিপণন মৌসুমে ভারত মোট ৬৫ হাজার ২৯৭ কোটি রুপির চাল রফতানি করেছে।

তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, গত বছর করোনা মহামারীর প্রভাবে সরবরাহ ঘাটতির আশঙ্কায় বেশকিছু দেশ অতিরিক্ত চাল আমদানি করে। চলতি বছর এসব দেশ চাল আমদানি বন্ধ রাখতে পারে। এটি ভারতের চাল রফতানিতে নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে।

২০২০-২১ মৌসুমে ভারতের মোট পণ্য রফতানি এর আগের মৌসুমের তুলনায় কমেছে। তবে এ সময় কৃষিপণ্য রফতানি ১৭ দশমিক ৫ শতাংশ বেড়ে ৪ হাজার ১৮০ কোটি ডলারের গণ্ডিকে ছাড়িয়ে গেছে। তবে চলতি বছর চাল রফতানি অত্যন্ত স্বল্প পরিসরে শুরু হয়েছে। এপ্রিলে দেশটির বাসমতি চাল রফতানি ১৫ শতাংশ কমেছে। মে মাসেও নিম্নমুখী এ ধারা অব্যাহত ছিল। তবে বাংলাদেশ ও আফ্রিকায় রফতানির পরিমাণ ছিল ঊর্ধ্বমুখী। বাংলাদেশ প্রতি মাসেই ভারত থেকে আমদানির জন্য ৫০ হাজার টন চালের দরপত্র আহ্বান করে। ভারতীয় চালের অন্যান্য শীর্ষ আমদানিকারক দেশগুলো হলো সৌদি আরব, ইরাক, ইরান ও সংযুক্ত আরব আমিরাত। এসব দেশেও চাল রফতানি অব্যাহত রেখেছে ভারত।